আবহাওয়া ও জলবায়ু | ০১। যে বায়ু সর্বদায় উচ্চচাপ অঞ্চল থেকে নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে প্রবাহিত হয় — নিয়ত বায়ু।

০২। সমুদ্রপৃষ্ঠে বায়ুর চাপ — প্রতি বর্গ সেমিতে ১০ নিউটন।

০৩। সমুদ্রে পৃষ্ঠে বায়ুর স্বাভাবিক চাপ — ৭৬ সেমি

০৪। বায়ুমন্ডলের চাপের ফলে ভূগর্ভস্থ পানি লিফট পাম্পের সাহায্যে সর্বোচ্চ উঠানো যায় — ১০ মিটার গভীরতা থেকে।

০৫। আবহাওয়ায় ৯০% অাদ্রতা মানে — বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ সম্পৃক্ত অবস্থায় ৯০%।

০৬। বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খনিজ সম্পদ — গ্যাস।

০৭। গর্জনশীল চল্লিশার অবস্থান — ৪০ ডিগ্রি থেকে ৪৭ ডিগ্রির মধ্যে।

০৮। Meteorology হলো — আবহাওয়া ও জলবায়ু সমন্ধীয় বিজ্ঞান।

১০। চট্টগ্রাম গ্রীষ্মকালে দিনাজপুর অপেক্ষা শীতল ও শীতকালে উষ্ম থাকে — সামুদ্রিক বায়ুর প্রভাবে।

১১। বর্ষাকালে ভিজা কাপড় শুকাতে দেরি হয় কারণ — বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকে।

১২। কোন স্থানের বায়ুচাপ হঠাৎ কমে গেলে — বায়ুপ্রবাহ বেড়ে যায়।

১৪। ঋতু পরিবর্তনের সাথে যে দিক পরিবর্তন হয় — মৌসুমী বায়ু।

১৫। কর্কটীয় ও মকরীয় উচ্চচাপ অঞ্চল থেকে নিরক্ষীয় নিম্নচাপ অঞ্চলের দিক সদা প্রবাহিত বায়ুকে বলা হয় — অায়ন বায়ু।

১৬। স্বাভাবিক অবস্থায় একজন মানুষের প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে চাপ পড়ে — ১৫ পাউন্ড।

১৭। বায়ুর চাপ সাধারণত সবচেয়ে বেশি — ঠান্ডা ও শুষ্ক থাকলে।

১৮। উত্তর গোলার্ধে সাইক্লোনের বায়ু প্রবাহিত হয় — ঘড়ির কাটার বিপরীত দিকে।

১৯। ভূপৃষ্ঠের প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে স্বাভাবিক বায়ুমন্ডলীয় চাপ — ১৪.৭২ পাউন্ড।

২০। মৌসুমী বায়ু সৃষ্টির মূল কারণ হলো — উত্তর অায়ন দক্ষিণ অায়ন | আবহাওয়া ও জলবায়ু


আরো পড়ুন: