পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | পাকিস্তান সৃষ্টির আগে পূর্ব বাংলার সামাজিক, অর্থনৈতিক, সংস্কৃতি ও শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পশ্চিম পাকিস্তানের চেয়ে অগ্রসর ছিল। কিন্তু ১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশের বিভক্তি হলে পূর্ব বাংলা পাকিস্তানের অন্তভূক্ত হয়ে যায়। তখন থেকে পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীরা পূর্ব বাংলার মানুষদের কঠোরভাবে শাসন-শোষণ, নিপিড়ন শুরু করে দেয়।

ফলে পূর্ব পাকিস্তান অর্থাৎ, পূর্ব বাংলা সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং সাংস্কিৃতক ক্ষেত্রে দ্রূত পিছিয়ে পড়া শুরু করে। ১৯৪৭ সালের পর থেকে দুই পাকিস্তানের মধ্যকার বৈষম্য ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেতেই থাকে। পরবর্তীতে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ২৪ বছর পরে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পূর্ব পাকিস্তান মুক্ত হয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জন্ম হয়।


অর্থনৈতিক বৈষম্য:

পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | পাকিস্তান সরকারের বৈষম্যনীতির কারণে পূর্ব পাকিস্তান অর্থনৈতিকভাবে ক্রমান্বয়ে পিছিয়ে পড়তে থাকে। অন্যদিকে, পশ্চিম পাকিস্তান অর্থনৈতিকভাবে অগ্রসর হতে থাকে। উদাহারস্বরুপ: ১৯৫৫-৫৬ অর্থবছর থেকে ১৯৫৯-৬০ অর্থবছরে পূর্ব পাকিস্তান লাভ করেছিল ১১৩ কোটি ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা। অন্যদিকে, এর বিপরীতে পশ্চিম পাকিস্তান পেয়েছিল ৫০০ কোটি টাকা।

একইভাবে ১৯৬০-৬১ সাল থেকে ১৯৬৪-৬৫ সালে পূর্ব পাকিস্তান লাভ করে ৬,৪৮০ মিলিয়ন টাকা। অন্যদিকে, পশ্চিম পাকিস্তানের ক্ষেত্রে তা ছিল ২২,২৩০ মিলিয়ন টাকা। ফলে শিল্প উৎপাদন, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং কৃষিসহ অর্থনীতির সকল ক্ষেত্রে পূর্ব পাকিস্তান পশ্চিম পাকিস্তানের চেয়ে কয়েকগুণ পিছিয়ে পড়ে।


প্রশাসনিক বৈষম্য:

পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | পাকিস্তানের প্রশাসনিক ব্যবস্থায় পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পূর্ব পাকিস্তানের বৈষম্য ছিল চরম পর্যায়ে। নিচে তৎকালীন পাকিস্তানের দুই অংশের মধ্যে প্রশাসনিক বৈষম্যের একটি চার্ট দেওয়া হলো:


খাতবাঙালিপশ্চিম পাকিস্তানি
প্রেসিডেন্টের সচিবালয়১৯%৮১%
প্রতিরক্ষা৮.১%৯১.৯%
শিল্প২৫.৭%৭৪.৩%
স্বরাষ্ট্র২২.৭%৭৭.৩%
তথ্য২০.১%৭৯.৯%
শিক্ষা২৭.৩%৭২.৭%
স্বাস্থ্য১৯%৮১%
আইন৩৫%৬৫%
কৃষি২১%৭৯%

শিক্ষা ক্ষেত্রে বৈষম্য:

পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | পাকিস্তান সৃষ্টির আগে পূর্ব বাংলা পশ্চিম পাকিস্তানের চেয়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় এগিয়ে ছিল। পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকে শিক্ষা খাতে পূর্ব পাকিস্তানের থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে দ্বিগুনেরও বেশি বাজেট বরাদ্দ দেওয়া হতো। ফলে পশ্চিম পাকিস্তানে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষার নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠলেও পূর্ব পাকিস্তান ক্রমান্বয়ে পিছিয়ে পড়তে শুরু করে।


প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বৈষম্য:

পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর স্থল, নৌ ও বিমান বাহিনীতে বাঙালিদের নিয়োগ ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে ব্যাপক বৈষম্য বিরজ করেছিল। মোট অফিসারের মধ্যে নৌবাহিনীর উচ্চপদে ১৯%, নিম্নপদে ৯%, বিমান বাহিনীর পাইলটদের ১১%, টেকনিশিয়ানদের ১.৭% এবং সাধারণ সৈনিকদের মাত্র ৪ শতাংশ ছিলেন বাঙালি। যা পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পূর্ব পাকিস্তানের মধ্যে অসীম বৈষম্য সৃষ্টি করে।


সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বৈষম্য:

পাকিস্তান আমলে বৈষম্য | ভারতীয় উপমহাদেশেরে বিভক্তির পরে পশ্চিম পাকিস্তানিরা বাঙালিদের সমাজ ও সংস্কৃতির উপর চরম আঘাত ঘানতে শুরু করে। বিশেষ করে পহেলা বৈশাখসহ বাঙালির অন্যান্য সংস্কৃতিতে পাকিস্তানিরা আঘাত হানে। অন্যদিকে, পাকিস্তানের বৈষম্যনীতির কারণে পূর্ব বাংলায় মধ্যবিত্তের বিকাশ মন্থর হয়ে পড়ে। ফলে বাঙালিরা অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হতে থাকে। উভয় অঞ্চলের মধ্যে বৈষম্য বৃদ্ধি পায়। মানুষ প্রতিবাদি হয়ে ওঠে এবং বিভিন্ন আন্দোলন গড়ে উঠে।


তথ্য সংগ্রহ করে লিখেছেন: Al-Amin Islam | অনিচ্ছাকৃতভাবে কোনো ভুল হয়ে থাকলে মেসেজ করার জন্য অনুরোধ রইল।

আরো পড়ুন: