পদ প্রকরণ:

প্রশ্নঃ “এ যে আমাদের চেনা লোক”- বাক্যে ‘চেনা’ কোন পদ?
ক. বিশেষ্য
খ. অব্যয়
গ. ক্রিয়া
ঘ. বিশেষণ
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ ক্রিয়াপদের সঙ্গে সম্পর্ক না রেখে যে নামপদ বাক্যস্থিত অন্য পদের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত হয় তাকে কি বলা হয় ?
ক. কারক
খ. সম্বোধন পদ
গ. সম্বন্ধ পদ
ঘ. সমাস
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘ওগো আজ তোরা যাসনে ঘরের বাহিরে।’ -এ বাক্যটিকে ‘ওগো’ শব্দটি কোন জাতীয় অব্যয়?
ক. সম্বোধনসূচক অব্যয়
খ. প্রশ্নবোধক অব্যয়
গ. উপসর্গ অব্যয়
ঘ. অনুকার অব্যয়
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ কিসের ভেদে ক্রিয়ার রূপের কোন পার্থক্য হয় না?
ক. বচনভেদে
খ. বর্ণনাভেদে
গ. অর্থভেদে
ঘ. প্রয়োগভেদে
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ বিশেষণের অতিশায়ণের উদাহরণ কোনটি?
ক. ধীরে ধীরে বাতাস বহে
খ. রকেট অতি দ্রুত চলে
গ. মেঘনা বাংলাদেশের বৃহত্তম নদী
ঘ. নীল আকাশে নক্ষত্রমণ্ডলী মিট্মিট্ করে
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ কোন বাক্যে ‘শেষ’ ক্রিয়ারূপে ব্যবহৃত হয়েছে?
ক. আমার সুখের শেষ নেই
খ. আমি আপনার শেষ কথা শুনতে চাই
গ. কাজটি শীঘ্র শেষ কর
ঘ. সব ভাল যার শেষ ভাল
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ কোনটি সমাসবদ্ধ বিশেষণ ?
ক. বেকার যুবক
খ. উজ্জ্বল প্রদীপ
গ. ঝকঝকে পাত্র
ঘ. দুর্ভাগ্যজনক সিদ্ধান্ত
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ গীতাঞ্জলি, অগ্নিবীণা কোন বিশেষ্য ?
ক. সমষ্টিবাচক
খ. সংজ্ঞাবাচক
গ. ভাববাচক
ঘ. গুণবাচক
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ বাংলা ভাষায় অব্যয় কত প্রকার ?
ক. ২
খ. ৪
গ. ৩
ঘ. ৬
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ কোন বাক্যে যৌগিক ক্রিয়ার উদাহরণ নেই?
ক. এখন যেতে পার
খ. শিক্ষায় মন সংস্কারমুক্ত হয়ে থাকে
গ. মা শিশুকে চাঁদ দেখাচ্ছেন
ঘ. এ চক্র ছিন্ন তো করতেই হবে
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘অন্তত আমার যাওয়া উচিত’ বাক্যটি কোন ধরনের অব্যয়ের উদাহরণ ?
ক. অব্যয় বিশেষণ
খ. ‘ত’ প্রত্যয়ান্ত অব্যয়
গ. নিত্য সম্বন্ধীয় অব্যয়
ঘ. অনুসর্গ অব্যয়
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ কোন শব্দটিতে সমধাতুজ কর্ম আছে ?
ক. সে বই পড়ছে
খ. সে গভীর চিন্তায় মগ্ন
গ. সে ঘুমিয়ে আছে
ঘ. সে যে চাল চেলেছে তাতে ষড়যন্ত্রকারী ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ সর্বনামের পুরুষ কত প্রকার ?
ক. ৪ প্রকার
খ. ৩ প্রকার
গ. ৫ প্রকার
ঘ. ২ প্রকার
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর।- এখানে ‘টাপুর টুপুর’ কোন পদের দ্বিরুক্তি?
ক. বিশেষ্য
খ. বিশেষণ
গ. ক্রিয়া
ঘ. অব্যয়
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ কোন বাক্যে ‘ভালো’ বিশেষণরূপে ব্যবহৃত হয়েছে?
ক. ভালোকে ভালো বলবো না তো কি?
খ. আপন ভালো সাবই চায়
গ. এখনে কি ভালোটা তুমি দেখলে?
ঘ. ভলোকে সবাই পছন্দ করে
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ “যত গর্জে তত বর্ষে না ।” বাক্যটিতে যত-তত অব্যয়ের ব্যবহার কোন অর্থে?
ক. পরিণাম
খ. তুলনা
গ. বৈপরীত্য
ঘ. কোনটিই না
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ নিচের কোনটি অজ্ঞাতমূল ধাতু?
ক. হের
খ. হাস
গ. খা
ঘ. ঘষ
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ ধাতুর পর কোন প্রত্যয় যুক্ত করে ভাববাচক বিশেষ্য বুঝায়?
ক. আন
খ. আই
গ. আল
ঘ. আও
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘মন্দকে মন্দ বলতেই হবে।’-এ বাক্যের দুই ‘মন্দ’ নিম্নের কোনটি?
ক. বিশেষ্য
খ. বিশেষণ
গ. প্রথমটি বিশেষ্য দ্বিতীয়টি বিশেষণ
ঘ. কোনটিই না
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘অঙ্ক’ কোন ধাতুর উদাহরণ?
ক. মৌলিক ধাতু
খ. সংস্কৃত ধাতু
গ. যৌগিক ধাতু
ঘ. বিদেশী
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘এ মাটি সোনার বাড়া’- এ উদ্ধৃতিতে ‘সোনা’ কোন অর্থে ব্যবহার করা হয়েছে?
ক. বিশেষণের অতিশায়ন
খ. রূপবাচক বিশেষ
গ. উপাদান বাক বিশেষ
ঘ. বিধেয বিশেষণ
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ কর্ম ও ক্রিয়া একই ধাতু হতে উৎপন্ন হলে তাকে কি বলে?
ক. মুখ্য কর্ম
খ. সমধাতুজ কর্ম
গ. ণিজন্ত কর্ম
ঘ. গৌণ কর্ম
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘না’ শব্দটি বাক্যের কোথায় বসে ?
ক. সমাপিকা ক্রিয়ার পরে
খ. বিশেষণের পরে
গ. অসমাপিকা ক্রিয়ার পরে
ঘ. সমাপিকা ক্রিয়ার পূর্বে
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ বাংলা ভাষায় একই পদ বিশেষ্য ও বিশেষণরূপে ব্যবহৃত হতে পারে তার উদাহরণ কোনটি?
ক. ভূয়সী প্রশংসা
খ. বাহুবলই শ্রেষ্ঠ বটে
গ. আপন ভালো সবাই চায়
ঘ. মেঘনা বাংলাদেশের দীঘতম নদী
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ সংযোগমূলক ধাতুজাত ক্রিয়া কি হতে পারে?
ক. সকর্মক
খ. অকর্মক
গ. সমাপিকা
ঘ. ক ও খ
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ কোনটি অনুকার অব্যয় ?
ক. কল কল
খ. ছি ছি
গ. যত যত
ঘ. মরি মরি
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ যে পদ দ্বারা কোনো এক জাতীয় প্রাণী বা পদার্থের সাধারণ নাম বুঝায়, তাকে বলে –
ক. সমষ্টিবাচক বিশেষ্য
খ. জাতিবাচক বিশেষ্য
গ. ভাববাচক বিশেষ্য
ঘ. গুণবাচক বিশেষ্য
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ নিশীথ রাতে বাজছে বাঁশি – এ বাক্যের নিশীত কোন পদ ?
ক. বিশেষ্য
খ. বিশেষণ
গ. সর্বনাম
ঘ. অব্যয়
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘সুন্দর পুষ্প, সুনীল আকাশ’- ‘সুন্দর ও সুনীল’ কোন শ্রেণীর বিশেষণ?
ক. ক্রিয়া বিশেষণ
খ. বিশেষ্যের বিশেষণ
গ. নাম বিশেষণ
ঘ. বিশেষণের বিশেষণ
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ভোজন, শয়ন, দেখা, শোনা প্রভৃতি কোন প্রকার বিশেষ্যের উদাহরণ ?
ক. গুণবাচক বিশেষ্য
খ. ভাববাচক বিশেষ্য
গ. জাতিবাচক বিশেষ্য
ঘ. সমষ্টিবাচক বিশেষ্য
উত্তরঃ খ

আরো পড়ুন: