প্রশ্নঃ যে ব্যক্তি উভয় কুল রক্ষা করে চলে- প্রবাদ বাক্যে তাকে কি বলে?
ক. কচুবনের কালাচাঁদ
খ. যেমন বুনো ওল তেমনি বাঘা তেঁতুল
গ. বরের ঘরের পিসী, কনের ঘরের মাসী
ঘ. বাইরে ফিটফাট ভেতরে সদর ঘাট
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘খাস তালুকের প্রজা’ প্রবাদটির অর্থ হলো-
ক. নিঃস্ব ব্যক্তি
খ. সৎ ব্যক্তি
গ. তোষামোদকারী
ঘ. খুব অনুগত ব্যক্তি
ঙ.অসৎ ব্যক্তি
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ ‘হাতির পাঁচ পা দেখা’-এই বাগধারার অর্থ কি?
ক. অবাক হওয়া
খ. গর্বে আনন্দিত হওয়া
গ. অহংকার বোধ করা
ঘ. ভুল দেখা
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ পড়েছি মোগলের হাতে খানা খেতে হবে একসাথে- প্রবচনটির অর্থ কী?
ক. মোগলের সাথে বসে খাদ্য খাওয়া
খ. উচ্চ শ্রেণীর ব্যাক্তির সাথে বসে খাওয়া
গ. সুদিন ফিরে আসা
ঘ. বিপদে পড়ে কাজ করা
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ ‘ব্যাঙের সর্দি’- অর্থ কি?
ক. রোগ বিশেষ
খ. সম্ভাব্য ঘটনা
গ. অসম্ভব ঘটনা
ঘ. প্রতারণা
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘শ্রীঘর’ এর বৈশিষ্ট্যপূর্ণ অর্থ কী?
ক. সুদৃশ্য ঘর
খ. বৈঠকখানা
গ. জেলখানা
ঘ. সরাইখানা
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ বাগধারা গঠনে বিভিন্ন পদের ব্যবহারকে কি বলে?
ক. যোগ্যতা
খ. অপকর্ষ
গ. উৎকর্ষ
ঘ. রীতি সিদ্ধ প্রয়োগ
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ “উনপঞ্চাশ বায়ু” বাগধারার অর্থ কী?
ক. পাগলামী
খ. বিরক্তি
গ. বদমেজাজ
ঘ. হিংসা
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ বাগধারা বা বাগ্বিধি কোন শব্দ বা শব্দগুছের–
ক. আভিধানিক অর্থ প্রকাশ করে
খ. বিশেষ অর্থ প্রকাশ করে
গ. আক্ষরিক অর্থ প্রকাশ করে
ঘ. অতিরিক্ত অর্থ প্রকাশ করে
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘সেচ্ছাচারী ব্যাক্তি’ বাগধারা দিয়ে বোঝানো হয়েছে?
ক. ধর্মের ষাঁড়
খ. পোয়া বারো
গ. রাহুর দশা
ঘ. বুদ্ধির ঢেকি
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ অরণ্যে রোদন- বাগধারাটির অর্থ কি?
ক. বনে রোদন
খ. নীরবে কান্না
গ. নিষ্ফল আবেদন
ঘ. দুর্লভ বস্তু
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘নিরানব্বইয়ের ধাক্কা’ বাগধারাটির অর্থ
ক. তীরে পৌঁছার ঝুক্কি
খ. সঞ্চয়ের প্রবৃত্তি
গ. মুমূর্ষু অবস্থা
ঘ. আসন্ন বিপদ
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ‘চিনির বলদ’ কথাটির অর্থ কি?
ক. লজ্জাহীন
খ. অযথা সময় নষ্ট
গ. ভারবাহী কিন্তু ফলভোগী নয়
ঘ. অত্যন্ত পরিশ্রমী
উত্তরঃ গ

বাচ্য পরিবর্তন:

প্রশ্নঃ “তিনি বললেন যে, বইটা তার দরকার” বাক্যটি কিসের উদাহরণ?
ক. প্রত্যক্ষ উক্তির
খ. কর্ম বাচ্যের
গ. কর্তৃবাচ্যের
ঘ. পরোক্ষ উক্তির
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ তুমি কখন এলে? বাক্যটিকে ভাববাচ্যে পরিণত করলে কি হবে?
ক. তোমার দ্বারা কখন আসা হলো?
খ. তোমার কখন আসা হলো?
গ. তুমি দ্বারা কখন আসা হলো?
ঘ. তুমি কখন আসা হলো
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ কর্তৃবাচ্যে ক্রিয়া পদ সবসময় কিসের অনুসারী হয়?
ক. কর্তার অনুসারী
খ. কর্মের অনুসারী
গ. বিধেয়ের অনুসারী
ঘ. ক্রিয়ার অনুসারী
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ ‘সুতি কাপড় অনেক দিন টিকে’ কোন বাচ্য?
ক. কর্তৃবাচ্য
খ. কর্মবাচ্য
গ. ভাববাচ্য
ঘ. কর্মকর্তৃবাচ্য
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ বাচ্য শব্দের অর্থ কি?
ক. পরিবর্তন
খ. বক্তব্য
গ. সংক্ষেপণ
ঘ. পরিবর্ধন
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ রোগী পথ্য সেবন করে- কোন বাচ্যের উদাহরণ?
ক. কর্তৃবাচ্য
খ. কর্মবাচ্য
গ. ভাববাচ্য
ঘ. কর্ম-কর্তৃবাচ্য
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ ‘তোমাদের কখন আসা হলো’- এটি কোন বাচ্যের উদাহরণ?
ক. কর্তৃবাচ্য
খ. ভাববাচ্য
গ. কর্মবাচ্য
ঘ. কোনটিই নয়
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ কাজটা ভালো দেখায় না- এটি কোন বাচ্যের উদাহরণ?
ক. কর্তৃবাচ্য
খ. কর্মবাচ্য
গ. কর্মকর্তৃবাচ্য
ঘ. ভাববাচ্য
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ কর্মবাচ্যের কর্তায় কোন বিভক্তি যুক্ত হয়?
ক. ৪র্থী
খ. ৫মী
গ. ৬ষ্ঠী
ঘ. ৩য়া
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ ভাববাচ্যের বাক্যকে কর্তৃবাচ্যে রূপান্তর করতে হলে কর্তায় কোন বিভক্তি যুক্ত করতে হয়?
ক. প্রথমা
খ. ২য়া
গ. ৩য়া
ঘ. ৬ষ্ঠী
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ কর্মবাচ্যে কর্মে কোন বিভক্তি হয়?
ক. দ্বিতীয়া
খ. তৃতীয়া
গ. ৪র্থী
ঘ. প্রথমা
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ ভাববাচ্যের কর্তায় সবসময় নিচের কোন বিভক্তি যুক্ত হয়?
ক. প্রথমা বা শূণ্য
খ. ৪র্থী
গ. ৫মী
ঘ. ষষ্ঠী বা দ্বিতীয়া
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ নিচের কোন বাক্যটি ভাববাচ্যের?
ক. আমি ভাত খেয়েছি
খ. আমার ভাত খাওয়া হয়েছে
গ. আমাকে ভাত দেওয়া হয়নি
ঘ. তোরা সব ভাতের যোগাড় কর
উত্তরঃ গ

প্রশ্নঃ ‘তার যেন আসা হয়’ ভাববাচ্যটি কর্তৃবাচ্যে পরিণত করলে নিচের কোনটি হবে?
ক. সে আসবে
খ. তার আসতে হবে
গ. সে অবশ্যই আসবে
ঘ. সে যেন আসে
উত্তরঃ ঘ

প্রশ্নঃ কর্মবাচ্যের ক্রিয়া কিসের অনুসারী হয়?
ক. কর্তা
খ. কর্মের
গ. ক্রিয়ার
ঘ. ভাবের
উত্তরঃ খ

প্রশ্নঃ ভাববাচ্যের বাক্যকে কর্তৃবাচ্যে রূপান্তর করতে হলে কিসের প্রয়োজন হয়?
ক. কর্তায় প্রথমা ও ক্রিয়া কর্তানুযায়ী হয়
খ. কর্মে প্রথমা এবং ক্রিয়া উত্তম পুরুষ হয়
গ. কর্তায় ষষ্ঠী বিভক্তির প্রয়োজন হয়
ঘ. কর্তায় ক্রিয়া অকর্মক হতে হয়
উত্তরঃ ক

প্রশ্নঃ নিচের কোনটি ভাববাচ্যের উদাহরণ?
ক. আসামীকে জরিমানা করা হয়েছে
খ. তোমরা কখন এলে?
গ. এ রাস্তা আমার চেনা নেই
ঘ. রোগী পথ্য সেবন করে
উত্তরঃ গ

আরো পড়ুন: