রাষ্ট্রবিজ্ঞান

৪০১ – রাষ্ট্রবিজ্ঞান প্রশ্নব্যাংক – ভূরাজনীতি

ঢাকা কলেজ – প্রথম ইনকোর্সঃ ০১। ভূ-রাজনীতি বলতে কি বুঝ? ভূ-রাজনীতির উপাদানসমূহ আলোচনা কর। ০২। ভূ-রাজনীতি অধ্যয়নের গুরুত্ব ও তাৎপর্য আলোচনা কর। ঢাকা কলেজ – দ্বিতীয় ইনকোর্সঃ ০৩। বাংলাদেশের সীমান্ত ব্যবস্থাপনার বিবরণ দাও। ০৪। জাতীয় স্বার্থ বলতে কি বুঝ? বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থ নিশ্চিত করার উপাদানসমূহ বর্ণনা কর। ঢাকা কলেজ – নির্বাচনী পরীক্ষাঃ ০৫। ভূ-রাজনীতি কি? …

৪০১ – রাষ্ট্রবিজ্ঞান প্রশ্নব্যাংক – ভূরাজনীতি Read More »

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি শক্তির অবদান

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি শক্তির অবদান | ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্বত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমাদের স্বাধীনতার পেছনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যেমন অবদান রয়েছে, ঠিক তেমনি বিদেশি শক্তির অবদানও অস্বীকার করার মতো নয়। ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ নানা প্রেক্ষিতে দক্ষিণ এশিয়ার রাজনীতিতে যেমন প্রভাব বিস্তার করেছে, ঠিক তেমনি আন্তর্জাতিক রাজনীতিতেও এর কমতি ছিলনা। একদিকে পাকিস্তান, চীন এবং …

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি শক্তির অবদান Read More »

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন | ১৭৫৭ তে পলাশীর যুদ্ধ খেলা’র মধ্য দিয়ে বাংলার স্বাধীনতার অবসান ঘটলো। শুরু হলো ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসন ও শোষণ। কিন্তু ইংরেজরা উপমহাদেশের জনগণের ভাষা এবং রাজভাষা (ফার্সী) কোনোটির উপরই আঘাত হানেনি। ইংরেজরা ইংরেজিকে রাজভাষা করেছিল ১৮৩৭ সালে। আর যে কারণে উপমহাদেশে প্রায় ২০০ বছর ব্রিটিশরা শাসন ও শোষণ করতে …

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন Read More »

রাষ্ট্রভাষা

রাষ্ট্রভাষা | মানব-বিকাশের এক উচ্চতর স্তরে ভাষার উদ্ভবের পর ব্যক্তিগত মালিকানার উদ্ভব। সে পর্যায়েই সম্পত্তিতে অধিকার ও বঞ্চনার ভিত্তিতে শ্রেণি বিভক্ত সমাজের সূচনা, ব্যক্তিক সম্পত্তি তথা শ্রেণিগত সুযোগ সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণের তাগিদে রাষ্ট্রের সৃষ্টি। এ রাষ্ট্রীয় কার্যকলাপ পরিচালনায় ব্যবহৃত ভাষাই রাষ্ট্রভাষা। রাষ্ট্রভাষা সমাজের বিবর্তন-ধারায় ক্রীতদাস প্রথা, ভূমিদাস প্রথা ও মজুরীদাস প্রথা যথাক্রমে অভিজাততন্ত্রী, সামন্ততন্ত্রী ও …

রাষ্ট্রভাষা Read More »

ভূ-রাজনীতি অধ্যয়নের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক অধ্যয়নে যে কোন রাষ্ট্রের জন্য ভূ-রাজনীতি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ কোন দেশের ভৌগোলিক দিকগুলো তার জাতীয় শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। অধ্যাপক মর্গ্যান থু, বলেছেন, ভৌগোলিক অবস্থান সবচেয়ে স্থায়ী উপাদান যার উপর কোন দেশের জাতীয় শক্তি নির্ভর করে। বর্তমান পৃথিবীতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যার উন্নতির ফসল আধুনিক যানবাহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে সমগ্র জাতির …

ভূ-রাজনীতি অধ্যয়নের গুরুত্ব ও তাৎপর্য Read More »

ভূ-রাজনীতির বিষয়বস্তু

ভূরাজনীতি হচ্ছে ভৌগোলিক উপাদানের ও রাজনৈতিক কৌশলগত উপাদানের মধ্যকার সম্পর্ক অধ্যয়ন। ক্ষমতা ও ক্ষমতার চর্চার সাথে ভৌগোলিক স্থান বা অবস্থানের মধ্যকার সম্পর্কসমূহের গবেষণাভিত্তিক জ্ঞানকাণ্ড। ভৌগোলিক সীমানা, ভৌগোলিক গঠন, প্রাকৃতিক সম্পদ ও এর সাথে কর্তৃত্ব ও জাতিরাষ্ট্রের ক্ষমতা চর্চর সম্পর্কের আলোচনাই হচ্ছে ভূ রাজনীতি। ভূ-রাজনীতির বিষয়বস্তু বা পরিধি ব্যাপক ও বিস্তৃত। নিম্নে ভূ-রাজনীতির বিষয়বস্তু সম্পর্কে আলোকপাত …

ভূ-রাজনীতির বিষয়বস্তু Read More »

ভূ-রাজনীতির উপাদানসমূহ

ভৌগোলিক অবস্থানের দিক থেকে সকল রাষ্ট্র সমান মর্যাদা বা সুযোগ লাভ করতে পারে না। ভৌগোলিক অবস্থানের ভিত্তিতে একেক রাষ্ট্রের ক্ষমতা, প্রভাব, সুযোগ-সুবিধা, মর্যাদা ইত্যাদি ভিন্নরকম হয়ে থাকে। একটি রাষ্ট্রের ভূ-রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারণের ক্ষেত্রে কতগুলো বিষয়ের ওপর গুরুত্ব প্রদান করা হয়। এইসব বিষয় ভূরাজনৈতিক উপাদান হিসেবে বিবেচিত হয়। সাধরণভাবে রাজনৈতিক ক্রিয়া, রাজনৈতিক শক্তি এবং ভৌগোলিক বিন্যাসের …

ভূ-রাজনীতির উপাদানসমূহ Read More »

ভূরাজনীতির সংজ্ঞা

বর্তমান বিশ্বে কোন রাষ্ট্রই অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক বজায় না রেখে চলতে পারে না। এক্ষেত্রে কোন দেশ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালনা করার জন্য অন্য দেশের সহযোগিতা প্রয়োজন। আর অন্যান্য দেশের সাথে সম্পর্ক স্থাপিত হয়। পররাষ্ট্রনীতি ও কূটনীতির মধ্য দিয়ে। পররাষ্ট্রনীতি নির্ধারণে ভূরাজনীতির গুরুত্ব অপরিসীম। এক্ষেত্রে যেকোন দেশের ভৌগোলিক অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। ভৌগোলিক …

ভূরাজনীতির সংজ্ঞা Read More »

দুই পাকিস্তানের মধ্যে বিদ্যমান অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বৈষম্য

দুই পাকিস্তানের মধ্যে বৈষম্য | ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্টের মধ্যরাতে উপমহাদেশে ব্রিটিশ রাজত্বের অবসান ঘটে রক্তপাত, পারস্পরিক ঘৃণা ও ধর্মীয় ছলনাময়ী তথাকথিত ‘দ্বিজাতিতত্ত্ব’-এর ভিত্তিতে; সৃষ্টি হয় ‘পাকিস্তান’ ও ‘ভারত’ নামের দুটো রাষ্ট্র। ভারতবর্ষের বিভাজনের কোলাহলের মধ্য দিয়ে জন্ম নেওয়া, অযোগ্য রাজনীতিবিদ ও অপরিণামদর্শী সমরনায়কদের নেতৃত্বে খুঁড়িয়ে চলা, জিন্নাহের সৃষ্টি, অস্বাভাবিক ও মৃতপ্রায় রাষ্ট্র হিসেবে পাকিস্তান …

দুই পাকিস্তানের মধ্যে বিদ্যমান অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বৈষম্য Read More »

পূর্ব পাকিস্তানের সমাজ জীবনে পাকিস্তান সৃষ্টির প্রভাব

পূর্ব পাকিস্তানের সমাজ জীবনে পাকিস্তান সৃষ্টির প্রভাব | ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশী যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলার নিয়ন্ত্রণক্ষমতা চলে যায় ইংরেজদের হাতে। ইংরেজরা এদেশের শাসনভার গ্রহণ করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে ইংরেজরা এদেশ ছেড়ে চলে যায়। দীর্ঘ ২০০ বছরের ইংরেজ শাসনের অবসান ঘটে ১৯৪৭ সালে। এ সময় বাংলা ইংরেজ শাসনমুক্ত হয়। বাংলা ইংরেজ শাসনমুক্ত হলেও পাকিস্তানিরা …

পূর্ব পাকিস্তানের সমাজ জীবনে পাকিস্তান সৃষ্টির প্রভাব Read More »

পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র রচনা সংক্রান্ত সমস্যা

পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র রচনা সংক্রান্ত সমস্যা || ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান এবং ১৫ আগস্ট ভারত স্বাধীন হয়। কিন্তু স্বাধীনতা লাভের পর ভারত একটি শাসনতন্ত্র রচনা করতে পারলোও পাকিস্তান তা করতে পারেনি। ১৯৪৭ সালের ভারত স্বাধীনতা আইনানুসারে পাকিস্তানের জন্য একটি সংবিধান তৈরির উদ্দেশ্যে উক্ত সালেই প্রথম গণ-পরিষদ গঠন করা হয়। এটাই পাকিস্তানের প্রথম গণ-পরিষদ নামে খ্যাত। …

পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র রচনা সংক্রান্ত সমস্যা Read More »

পাকিস্তান সৃষ্টির অর্থনৈতিক পটভূমি

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টির অর্থনৈতিক পটভূমি সম্পর্কে নিম্নে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো : ০১। চাকরি ক্ষেত্রে বৈষম্য : ব্রিটিশরা ‘ভাগ কর শাসন কর’ নীতিতে বিশ্বাসী ছিল। এজন্য তারা ভারতীয় উপমহাদেশের প্রধান দু’টি সম্প্রদায়ের মধ্যে সর্বদা বিভেদ লাগিয়ে রাখার চেষ্টা করতো। তাছাড়া ব্রিটিশ শাসনের প্রাথমিক দিক থেকে ইংরেজরা হিন্দুদের প্রতি একটু বেশি সহানুভূতিপ্রবণ ছিল। এজন্য তারা …

পাকিস্তান সৃষ্টির অর্থনৈতিক পটভূমি Read More »

পাকিস্তান সৃষ্টির সামাজিক পটভূমি

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টির সামাজিক পটভূমি || ১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশকে দু’টি ভাগে বিভক্ত করে ভারত ও পাকিস্তান নামে দু’টি স্বাধীন রাষ্ট্রের সৃষ্টি একটি যুগান্তকারী ঘটনা। বস্তুত ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর আম্রকাননে ইংরেজদের বিরুদ্ধে বাংলার শেষ ও স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতনের মধ্য দিয়ে ব্রিটিশ বেনিয়া শাসকগোষ্ঠী এ উপমহাদেশে যে ঔপনিবেশের ভিত গড়েছিল তা প্রায় …

পাকিস্তান সৃষ্টির সামাজিক পটভূমি Read More »

পাকিস্তান সৃষ্টির প্রধান কারণসমূহ

পাকিস্তান সৃষ্টির প্রধান কারণসমূহ | ১৭৫৭ সালে পলাশির যুদ্ধে নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতনের মধ্য দিয়ে এদেশে ব্রিটিশ শাসনের সূত্রপাত হয়। এরপর ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহ প্রতিরোধ করে ইংরেজরা তাদের শাসন কর্তৃত্ব পাকাপোক্ত করে। ১৮৫৭ সালে এ বিদ্রোহের দায়-দায়িত্ব ইংরেজরা মুসলমানদের ঘাড়ে চাপিয়ে দেন। ফলে হিন্দু-মুসলিম দুই জাতির মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। আর এই বিরোধের সূত্র ধরেই …

পাকিস্তান সৃষ্টির প্রধান কারণসমূহ Read More »

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের পক্ষে যুক্তি

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের পক্ষে যুক্তি | দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর আন্তর্জাতিক বাস্তবতায় ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শক্তি যখন ভারতবর্ষ থেকে তাদের ঔপনিবেশিক শক্তি গুটিয়ে নিচ্ছিলেন তখন এ অঞ্চলের বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী স্বাধীনতার বিষয়টি নানা পক্ষ থেকে নানাভাবে উপস্থাপিত হতে থাকে। এমনি এক রাজনৈতিক পটভূমিতে সোহ্রাওয়ার্দী ও আবুল হাশিম ‘স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র’ প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব নিয়ে এগিয়ে আসেন। ১৯৪৭ …

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের পক্ষে যুক্তি Read More »

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের প্রয়াস

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের প্রয়াস | উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের শেষ পর্যায়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন বিশ্ব বাস্তবতায় যখন সারা বিশ্ব থেকে ব্রিটিশরা পাততাড়ি গুটিয়ে নিজ মাতৃভূমির দিকে গমন করার চিন্তা ভাবনা করতে থাকে ঠিক সেই মুহূর্তে ১৯৪৬ সালে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সংঘটিত হয়। ভারতের পরিস্থিতি জটিল হয়ে উঠে। এ পরিস্থিতি মোকাবিলায় ব্যর্থ ব্রিটিশ …

স্বাধীন অখণ্ড বাংলা রাষ্ট্র গঠনের প্রয়াস Read More »

লাহোর প্রস্তাবের মধ্যে স্বাধীন বাংলাদেশের বীজ

লাহোর প্রস্তাবের মধ্যে স্বাধীন বাংলাদেশের বীজ | ১৯২৮ সালে প্রকাশিত নেহেরু রিপোর্ট, ১৯৩৭ সালের প্রাদেশিক নির্বাচনের পর কংগ্রেস শাসিত প্রদেশসমূহে মুসলিম মন্ত্রী অন্তর্ভুক্তির নিয়ে কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের মতানৈক্য, কংগ্রেস শাসিত প্রদেশগুলোতে দলীয়করণ ও সাম্প্রদায়িক মনোভাব প্রদর্শন ভারতীয় মুসলমানদের হতাশ করে। এর ফলে মুসলমান নেতাগণ নিজেদের পৃথক অস্তিত্ব রক্ষায় সচেষ্ট হন। মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ তাঁর …

লাহোর প্রস্তাবের মধ্যে স্বাধীন বাংলাদেশের বীজ Read More »

লাহোর প্রস্তাবের গুরুত্ব

লাহোর প্রস্তাবের গুরুত্ব | ১৯৩৭ সালের প্রথম দিকে ভারতে প্রাদেশিক আইনসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে ভারতীয় কংগ্রেস দল ছয়টি প্রদেশে পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। মুসলিম লীগ কংগ্রেসের সাথে যুক্তভাবে মন্ত্রিসভা গঠনের প্রস্তাব করলে কংগ্রেস তা অস্বীকার করে। মুসলিম লীগ বাংলা ও পাঞ্জাবে সর্বদলীয় মন্ত্রিসভা গঠন করে। কিন্তু কংগ্রেস ১৯৩৭ সালের জুন মাসে ৬টি প্রদেশে …

লাহোর প্রস্তাবের গুরুত্ব Read More »

error: Content is protected !!